ফেস আই ডি FT 200

প্রতিটা মানুষের পছন্দে যেমন ভিন্নতা আছে তেমনি ভিন্নতা আছে পণ্যের ডিজাইন এবং ফিচারে। এক এক গ্রাহকের চাহিদা এক এক রকম। ফিচারের সাথে সাথে থাকে দামেও ভিন্নতা। এক্সেস কন্ট্রোল (Access control) এমনি একটি সিকিউরিটি এবং টাইম এটেডেন্স সিস্টেম যা ছোট,বড়,মাঝারি,যে কোন প্রতিষ্ঠানের যে কোন সময় প্রয়োজন হতে পারে। আর তাই গ্রাহকের কথা মাথায় রেখে এই এফটি ২০০ মডেলটি বাজারজাত করা হয়েছে। এটি ছোট আকারের কম ব্যাবহারকারীদের জন্য একটি উন্নত মানের এক্সেস কন্ট্রোল,যা নিশ্চিত করবে যে কোন স্থাপনার অনুমোদিত (Authorized) কিংবা অনুনোমোদিত (Un-authorized) প্রবেশের নিশ্চয়তা।

কোন কোন জায়গার জন্য উপযুক্তঃ

এই ধরনের ফেইস ডিটেক্টর (Face Ditector) এক্সেস কন্ট্রোল চাইলেই যে কোন নিরাপত্তা ইস্যুতে ব্যাবহার করা যায়। তবে এটি বেশী গুরুত্ত্বপূর্ণ হচ্ছে পার্কিং (Parking),গোডাউন (Godown),যে কোন ধরনের প্রজেক্ট এরিয়া (Project area),সুপার শপ (Supershop),মল (Mall),বিভিন্ন ব্রান্ডের শোরুম (Brand showroom),অফিস (Office),কারখানা (Factory),ক্লাব (Club),ডায়াগনস্টিক সেন্টার (Diagonostic centre),হসপিটাল (Hospital),আবাসিক হোটেল (Hotel),এপার্টমেন্ট (Apartment) এবং সিকিউরিটি কোম্পানীর (Security company) জন্য। এছাড়া এফটি২০০ এর মডেলটি যে সকল নিরাপত্তা জনিত জায়গায় ছোট এবং মাঝারি ধরনের অনুমোদিত ব্যাক্তি কাজ করেন সে সকল জায়গায়ও ব্যাবহার করা যাবে।

ব্যাবহারকারী সহায়তা বা User support:

এফটি২০০ মডেলের এক্সেস কন্ট্রোলটি প্রায় পাঁচশত (৫০০) ইউজারের ফেইস এবং ১০ হাজার নন-ফেইস ইউজারকে আইডেন্টিফাই করতে সক্ষম। এতে বোঝা যায় যদি কোন কোম্পানীতে কম কিংবা মাঝারি সংখ্যার চাকুরীজিবী থাকে তাহলে তারা চাইলে ৫শ জনকে ফেইস আইডেন্টিটির মাধ্যমে প্রবেশের অনুমোদন দিতে পারবে।এরপর যদি অবশিষ্ট্য থেকে যায় তাহলে তা ১০ হাজার পর্যন্ত পিন (PIN) অথবা কার্ডের (Card) মাধ্যমে অনুমোদিত করে নিতে পারবে। এই মডেলের মাত্র একটি এক্সেস কন্ট্রোলের মাধ্যমে অনুমোদিত ব্যাক্তিদের টাইম এটেন্ডেন্স (Time attendence) সহ প্রতি ঘন্টার মজুরী নির্ধারন এবং অনুনোমোদিত (un-authorized) প্রবেশ ঠেকানোর কাজ করা যাবে।

স্ক্যান টাইমঃ

স্ক্যান টাইম একটি গুরুত্ত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য। যদি এটি দুর্বল হয় তাহলে ব্যাবহারকারী বিরক্ত হতে পারেন। এফটি২০০ মডেলের এই যন্ত্রটি একজন ব্যাক্তির পরিচয় সনাক্ত করতে মাত্র ১ সেকেন্ড (One second) কিংবা তার চেয়ে কম সময় নেবে। কারন এতে ব্যাবহার করা হয়েছে ১ গিগাহার্টজ হাই স্পীড প্রসেসর (1GHz high speed processor) এবং ফেইস ডিটেকশানের জন্য আছে ২.৮” টাচ (Touch screen) স্ক্রীন। সে সাথে এটি ১ লক্ষ ব্যাবহারকারীর ডাটা সংরক্ষন করার সক্ষমতা রাখে।

হার্ডওয়্যার এবং সফটওয়্যারঃ

এফটি২০০ মডেলের এই এক্সেস কন্ট্রোলটি হার্ডওয়্যারের দিক থেকে অনেক বেশী স্ট্রং,টেকশই এবং ত্রিভুজ আকৃতির। যা চাইলে যে কোন জায়গায় স্থাপন করার সুবিধার কথা মাথায় রেখে ডিজাইন করা হয়েছে। উন্নতমানের বডি ফিনিশিংয়ের সাথে আছে আধুনিক সফটওয়্যার। কাস্টমাইজড (Customized) সফটওয়্যারের মাধ্যমে চাইলে এটাকে লোকালি (Locally) কিংবা রিমোটলি (Remotely) অথবা ক্লাউড বেইজ (Cloud based) হিসেবে ব্যাবহার করা যায়। এ ছাড়া রিয়েল আইপি-র (Real IP) মাধ্যমে এই ডিভাইসটি কেন্দ্রীয় ভাবে নিয়ন্ত্রণ করা যায়। উন্নত সফটওয়্যারের কারনে এটি ৩০সেমি. থেকে ৮০ সেমি. দুরত্ত্বে পরিচিত জিনিসকে খুব দ্রুত আইডেন্টিফাই করতে সক্ষম।

যোগাযোগ ব্যাবস্থা বা Communication:

এতে টিসিপি (TCP)/আইপি (IP),ইউএসবি হোস্ট (USB Host) এবং উইগানড আউটপুট (Wiegand output) রয়েছে। সেই সাথে রয়েছে ডাটা ট্রান্সফার (Data transfer) ও স্টোরেজের (Storeg) সুবিধাও। ফেইস আইডেন্টিফিকেশন (Face identification) ছাড়াও এই নিরাপত্তা যন্ত্র কার্ড (Card),পিন (PIN) ও ফটো (Photo) সাপোর্ট করে। সুতারাং চাইলে ব্যাক্তি যে কোন মাধ্যমে এর ব্যাবহার এবং তার গুরুত্ত্বপূর্ণ স্থাপনার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারবে।

সার্টিফিকেটঃ

আন্তর্জাতিক মানের এই পণ্যটি CE,FCC,Class A ROHS সার্টিফাইড। তাই যে কোন প্রতিষ্ঠানের নিরাপত্তা বিষয়ে এই মডেলের এক্সেস কন্ট্রোল নিশ্চিন্তে ব্যাবহার করা যায়।

এক্সেসরিজ ব্যাবহারঃ

টাইম এটেন্ডেন্স ছাড়াও এর সাথে ব্যাবহার করা যাবে বিভিন্ন ধরনের লক। যেমনঃ ইএম লক,বোল্ট লোক,রিম লক, গ্লাস ডোর ব্রাকেট, এক্সিট পুশ বাটন এনালগ,টাচ এক্সিট পুশ বাটন,ওয়্যারলেস পুশ সুইচ ইত্যাদি।